Home / অন্যরকম / এগিয়ে যাচ্ছি আমরা এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

এগিয়ে যাচ্ছি আমরা এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

___ রফিকুল ইসলাম মন্ডল বুলবুল

প্রত্যেক মানুষের ক্ষেত্রেই পেশাগত দক্ষতার পাশাপাশি প্রযুক্তিজ্ঞান, নিষ্ঠা, নৈতিকতা ও দেশপ্রেম থাকা জরুরি। একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে গণতান্ত্রিক সরকার গৃহীত নীতিমালার সুষ্ঠু বাস্তবায়নে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভাসিত দক্ষ, গতিশীল ও জবাবদিহিমূলক প্রশাসন অত্যন্ত গুরুত্ব বহন করে । সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কার্যকর ও জনসম্পৃক্ত প্রশাসন, সুসংগঠিত ও মানসম্পন্ন সিভিল সার্ভিস এবং জনগণকে কাঙ্ক্ষিত সেবা প্রদানে সরকার নানামুখী সংস্কারমূলক পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে। ই-গভর্নেন্স, দ্বিতীয় প্রজন্মের সিটিজেন চার্টার এবং দেশের প্রথম একক পাবলিক সার্ভিস আইন প্রণয়ন এই প্রয়াসেরই অংশ।

আমি রাজনীতির মানুষ। দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি। তারপরও যেটা সত্য তা হলো, সব সময় সত্যটা বলতে পারি না। এই না বলা কথাগুলোই চেষ্টা করি আপনাদের মাঝে তুলে ধরতে। আমার এ লেখায় সার্থকতা তখনই যখন তা আপনাদের বুঝাতে সক্ষম হই। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের সবাইকেই দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ হতে হবে। কেননা বাংলাদেশ আমাদের গর্ব, আমাদের অহঙ্কার! আমাদের মতো করে বিশ্বের কোনো জাতি তার দেশকে ভালোবাসে কি-না জানি না। তবে জানি আমরা সংগ্রামে একে অন্যের সহচর। ঝড়-জলোচ্ছ্বাস, খরা-বন্যায় আমরাই পরস্পরের স্বজন। বিপন্ন মানবতা আমাদের হাত ধরে পায় বেঁচে থাকার সাহস, ঘুরে দাঁড়ানোর সংকল্প। তখনই যেন হযরত রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর বাণীর সার্থকতা ‘তুমি মুমিনগণকে পারস্পরিক করুণা প্রদর্শণ, পারস্পরিক প্রেম-ভালোবাসা এবং পারস্পরিক সহানুভূতি প্রদর্শণের দিক দিয়ে একই দেহের ন্যায় দেখতে পাবে। যখন দেহের কোনো একটি অঙ্গ কষ্ট অনুভব করে তখন গোটা দেহই জ্বর ও নিদ্রাহীনতা দ্বারা এর প্রতি সাড়া দিয়ে থাকে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

দেশের শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য চেষ্টা চালানো একজন ঈমানদারের কর্তব্য। তাই দেশের জন্য আমাদের করণীয় হলো, নিজেকে দেশের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা, দেশের ক্ষতি না করা, ক্ষতির চিন্তা না করা। দেশের আইন মেনে চলা, সময় মতো কর পরিশোধ করা, জনকল্যাণমূলক কাজে সাহায্য, অংশগ্রহণ ও সহানুভূতি অনুভব করা ইত্যাদি।

দেশপ্রেম প্রসঙ্গে নাগরিক অধিকার ও কর্তব্য একটি সচেতন ধারণা। তাই বলতে হয় রাষ্ট্রের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অধিকার ভোগকারী এবং বিশেষ দায়িত্ব পালনকারীকেই বলা হয় রাষ্ট্রের নাগরিক।

রাষ্ট্রের নাগরিকের অধিকার এবং কর্তব্য অত্যন্ত সুসমন্বিত ও পারস্পরিক সম্পৃক্ত। তাই প্রত্যেক নাগরিকের অধিকার সচেতনতা এবং কর্তব্যপরায়ণতা সম্পর্কে ধারণা থাকা একান্ত জরুরি। সামাজিক ক্ষেত্রে একজন নাগরিক যেসব অধিকার ভোগ করে তার অন্যতম হলো বেঁচে থাকার অধিকার। এরপরও আমাদের বিশ্বাস করতে হবে যে, এগিয়ে যাচ্ছি আমরা এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। সেদিক থেকে সবাইকে সমসুরে বলতে হবে, একবিংশ শতাব্দীর চেলেঞ্জিংয়ে এখন একটাই কথা পিছিয়ে পড়ার সুযোগ নেই।

এরমাঝেও যে কথাটি না বললেই নয় তা হলো দুর্নীতি আমাদের সমাজে ব্যাধিতে রূপ পেয়েছে। এ ব্যাধি চাইলেই এক-দুই দিনে নির্মূল হয়ে যাবে না। তবে দুর্নীতিকে নির্মূল করার মানসিকতা সবার থাকতে হবে। নতুন প্রজন্মের মধ্যে দুর্নীতিবিরোধী নৈতিক মূল্যবোধ জাগ্রত করার ক্ষেত্রে আমাদের বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। যার ধারাবাহিকতায় আগামীর বাংলাদেশকে আজকের শিশু-কিশোরদের শিক্ষার মান উন্নয়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। কেননা দেশকে দুর্নীতিমুক্ত রাখতে নতুন প্রজন্মের কাছে দায়িত্ব তুলে দিতে হবে। এ জন্য তাদের বিশ্বমানের শিক্ষার পাশাপাশি ভালো মানুষ হওয়ার শিক্ষারও প্রয়োজন। দেশের অব্যাহত উন্নয়নে মূল্যবোধকে গ্রথিত করার ওপর জোর দেওয়ার পাশাপাশি এটা বুঝতে হবে, নৈতিক মূল্যবোধহীন কোনো উন্নয়নই টেকসই হবে না।

যেহেতু সমাজের বড় ব্যাধি দুর্নীতি, আর তা তাৎক্ষণিক বন্ধ না করা গেলেও আজকের শিশু-কিশোররাই সামনের দিনগুলোতে দূর্নীতি বন্ধ করতে পারবে। এ জন্য নতুন প্রজন্মকে নৈতিক মূল্যবোধের পাশাপাশি যুগসম্মত শিক্ষার মধ্য দিয়ে দূর্নীতিকে ঘৃণা করার শিক্ষা দিতে হবে। এবং তাদের মাঝে দেশপ্রেমের মহত্বের বীজ বুনে বিশ্বকে জানান দিতে হবে- আমরা এদেশ স্বাধীন করেছি, আমরাই এগিয়ে নিয়ে যাব আমাদের বাংলাদেশকে।

About Abu Rayhan

আরও দেখুন

16807761_108883132969378_7659074573731222117_n

আঞ্জুমন আরা’র দু’টি ছড়া

আঞ্জুমন আরা’র দু’টি ছড়া খুকুমনির বই মেলা।   বই মেলাতে যাবে খুকু বায়না ধরেছে, গোমরা …

Leave a Reply